ইলিশের পূর্ণাঙ্গ জীবনরহস্য বাংলাদেশের হাতে

ইলিশের পূর্ণাঙ্গ জীবনরহস্য

আকাশ২৪ ডেস্কঃ ইলিশের পূর্ণাঙ্গ জীবনরহস্য এখন বাংলাদেশী বিজ্ঞানীদের হাতে।  বাংলাদেশ ইলিশের ভৌগোলিক স্বীকৃতি পাওয়ার পর দেশীয় ইলিশের রেফারেন্স জিনোম প্রস্তুতকরণ, জিনোমিক ডাটাবেজ স্থাপন এবং মোট জিনের সংখ্যা নির্ণয় করার লক্ষ্যে ২০১৫ সালের ডিসেম্বরের দিকে এই গবেষণা শুরু করেন বাকৃবির গবেষকরা। তারই ফলশ্র“তিতে বেরিয়ে আসে ইলিশ মাছের পূর্ণাঙ্গ জীবন রহস্য।

বাংলাদেশ কৃষি বিশ্ববিদ্যালয়ে ফিশারিজ বায়োলজি অ্যান্ড জেনেটিক্স বিভাগের অধ্যাপক ড. মো. সামছুল আলমের নেতৃত্বে পরিচালিত এক গবেষণায় এ তথ্য উঠে আসে।

শনিবার সকাল নয়টার দিকে সংবাদ সম্মেলন করে এতথ্য জানান পূর্ণাঙ্গ ইলিশ জিনোম সিকোয়েন্সিং ও অ্যাসেম্বলি টিমের সমন্বয়ক ফিশারিজ বায়োলজি অ্যান্ড জেনেটিক্স বিভাগের অধ্যাপক ড. মো. সামছুল আলম।

ড. মো. সামছুল আলম  বলেন, জিনোম হচ্ছে কোনো জীবের পূর্ণাঙ্গ জীবন বিধান। জীবের জন্ম, বৃদ্ধি, প্রজনন এবং পরিবেশের সঙ্গে খাপ খাওয়াসহ সব জৈবিক কার্যক্রম পরিচালিত হয় জিনোম দ্বারা। ইলিশের জিনোমে ৭৬ লাখ ৮০ হাজার নিউক্লিওটাইড রয়েছে, যা মানুষের জিনোমের প্রায় এক চতুর্থাংশ। ইলিশের পূর্ণাঙ্গ জিনোম সিকোয়েন্স জানার মাধ্যমে অসংখ্য অজানা প্রশ্নের উত্তর জানা যাবে খুব সহজেই।

ইলিশের পূর্ণাঙ্গ ডি-নোভো জিনোম সিকোয়েন্সিংয়ের গবেষণা কাজটি গবেষকবৃন্দের নিজস্ব উদ্দ্যোগ, স্বেচ্ছাশ্রম এবং বিভিন্ন প্রতিষ্ঠানের পারস্পরিক সহযোগিতার ভিত্তিতে সম্পন্ন হয়েছে। এ গবেষণার মাধ্যমে বাংলাদেশ কৃষি বিশ্ববিদ্যালয় ও বাংলদেশের মৎস্য সেক্টর পূর্ণাঙ্গ জিনোম গবেষণার যুগে প্রবেশ করল।

Leave a Comment

Your email address will not be published. Required fields are marked *

5 × two =